সিলেটে আতঙ্কের নাম ‘ট্রাক’

প্রকাশিত: ১:৫৪ পূর্বাহ্ণ, মে ৭, ২০২১ 44 views
শেয়ার করুন

সিলেটে যেন আতঙ্কের অপর নাম ট্রাক। বেপোরোয়া এসব ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে একর পর এক ঘটছে প্রাণহানী। গত ৫ দিনে সিলেটে ট্রাক চাপায় নিহত হয়েছেন ১০ জন। ট্রাক চালকরা বেপরোয়া হয়ে উঠলেও টনক নড়ছেনা কর্তপক্ষের। এ অবস্থায় দাবী উঠছে নগরের ভেতর দিয়ে ট্রাক চলাচল বন্ধের।
সর্বশেষ বুধবার রাত সাড়ে ৯টায় নগরের সুবিদ বাজারে বেপোরোয়া ট্রাকের চাপায় নির্মমভাবে মারা যান মো. সাব্বির নামে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদালয়ের এক শিক্ষার্থী।
শুধু সাব্বিরই নয়, সিলেট নগরের মধ্যে ট্রাক চাপায় প্রায়ই প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। নগরের ভেতর দিয়ে ট্রাক চলাচল বন্ধেরও দাবি ওঠেছে বিভিন্ন সময়। তবে কখনোই বন্ধ হয়নি ট্রাক চলাচল।
সিলেট সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে রাত ৯টার আগে নগরীতে ট্রাক প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হলেও তাও মানা হচ্ছে না। সন্ধ্যার পরপরই নগরের অনেক সড়কে ট্রাক চলাচল করতে দেখা যায়। বিশেষত সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা থেকে পাথরবহনকারী ট্রাক নগরের ভেতর দিয়ে সবচেয়ে বেশি চলাচল করে।
কোম্পানীগঞ্জ থেকে পাথর বহনকারী ট্রাক যাতে নগরের ভেতরে প্রবেশ করতে না হয় সে জন্য বিমানবন্দর-বাদাঘাট-তেমুখী বাইপাস সড়ক নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়। তবে সে উদ্যোগও নানা জটিলতায় থেমে আছে দীর্ঘদিন ধরে।
বুধবার রাতে নগরের দুর্ঘটনার আগে মঙ্গলবার মধ্যরাতে সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের ওসমানী নগরে ট্রাক চাপায় নিহত হন এক ব্যক্তি। উপজেলার ব্রাহ্মণগ্রাম নামক স্থানে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। নিহত মান্নান হাওলাদার (২৬) অপর একটি ট্রাকের হেলপার। এই দুর্ঘটনার কারণে মহাসড়কে প্রায় আড়াই ঘন্টা যান চালচল বন্ধ ছিলো।
এরআগে গত রোববার রাত দেড়টার দিকে সিলেটের জৈন্তাপুরের দরবস্ত এলাকায় ট্রাকের ধাক্কায় তিনজন নিহত হন।
একইদিন ভোরে একই উপজেলার ফেরিঘাট নামক স্থানে একটি বেপোরোয়া ট্রাক একটি অটোরিকশাকে ধাক্কা দিলে একই পরিবারের ৪ জনসহ মোট ৫ জন নিহত হন।
নিহত ব্যক্তিরা হলেন জৈন্তাপুর উপজেলার নিজপাট ইউনিয়নের রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম, তার চার বছরের মেয়ে সাকিয়া বেগম, তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, বোন হাবিবুন নেছা ও অটোরিকশাচালক হোসেন আহমদ।